অনিবন্ধিত অনলাইন টিভি সিভিশন আবারও মামলার জালে

0

কক্সবাজারের নারী রেশমা আক্তারের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার সুরাহা হওয়ার আগেই অনলাইন টিভি ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল-সিভিশন আবারও মামলার মুখে পড়েছে।

সীতাকুণ্ড মডেল থানায় দায়ের হওয়া মামলায় আসামি করা হয়েছে যথাক্রমে সিভিশনের বার্তা সম্পাদক আরিয়ান লেলিন ও সম্পাদক মিজানুর রহমান ইউছুফকে। এছাড়া ফেসবুক পেইজে যারা শেয়ার করেছে তাদের অজ্ঞাতনামা আসামি হিসাবে রাখা হয়েছে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম আল মামুনের বিরুদ্ধে সি-ভিশন নামের অনলাইন টিভিতে কুরুচিপূর্ণ ভাষা ব্যবহার করে জায়গা দখলকারী আখ্যা দিয়ে একটি সংবাদ প্রকাশ করে এবং তা বিভিন্ন মানুষকে দিয়ে ফেসবুকে শেয়ার করানো হয়েছে। এতে উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম আল মামুনের সম্মানহানি হয়েছে।

মামলায় দাবি করা হয়েছে, সংবাদটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, মিথ্যা ও বানোয়াট। উপজেলা চেয়ারম্যানের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ল্যান্ড অফিসার মোহাম্মদ মুছা বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন।

সীতাকুণ্ড মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, অনুমোদনহীন সি-ভিশন নামে একটি অনলাইন টিভিতে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে সংবাদ প্রকাশ করে তার সম্মানহানি করা হয়েছে মর্মে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে থানায় একটি মামলা হয়েছে। আর যারা এ সংবাদটি ফেসবুকে শেয়ার করেছেন তাদের অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

জানা গেছে, বনবিভাগের বাঁশবাড়িয়া বিট কর্মকর্তা আ. সালাম সরদার গত ৮ ফেব্রুয়ারি এসএম আল মামুনকে বনবিভাগের জায়গায় সাইনবোর্ড স্থাপন করেছে উল্লেখ করে নোটিশ দেন। নোটিশে তিন দিনের মধ্যে যাবতীয় কাগজপত্র উপস্থাপনের কথা উল্লেখ ছিল। নোটিশ পাওয়ার একদিন পর ১০ ফেব্রুয়ারি এসএম আল মামুনের পক্ষে ষ্টেইট অফিসার মোহাম্মদ মুছা যাবতীয় কাগজপত্র উপস্থাপন করে প্রমাণ করেন, সাইনবোর্ড এসএম আল মামুনের ক্রয় করা জমিতেই আছে, বনবিভাগের জায়গায় নয়।

মোহাম্মদ মুছা জানান, এছাড়াও এসএম আল মামুনের পক্ষ থেকে বনবিভাগকে ভবিষ্যতে ভূমি সংক্রান্ত যাবতীয় সহযোগিতার আশ্বাস দেওয়া হয়। কিন্তু সিভিশন উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রচার করেছে।

বিষয়টি জানতে সিভিশন সম্পাদক মিজানুর রহমান ইউসুফের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করেও বন্ধ পাওয়া গেছে।

এর আগে সিভিশনের বিরুদ্ধে কক্সবাজারের রেশনা আক্তার নামের এক নারী সাইবার ট্রাইবুনালে মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় আরিয়ান লেনিন, মিজানুর রহমান, বাপ্পী আলমগীর ও মোরশেদ নামে আরও একজনকে আসামি করা হয়। মামলা নম্বর ২০৫/২০২১।

এসএ

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm