চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদযাপন করল ওয়ান বাংলাদেশ

মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের ২৪ দিন পর পাকিস্তানে বন্দিদশা থেকে মুক্ত হয়ে ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি দেশে ফিরেছিলেন বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা শেখ মুজিব। দিনটি জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানোর মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করেছে ওয়ান বাংলাদেশ চট্টগ্রাম জেলা শাখা।

বুধবার (১০ জানুয়ারি) বিকেলে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে (সিভাসু) স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো হয়।

সংগঠনের চট্টগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক ড. ওমর ফারুক মিয়াজী ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. আশুতোষ দাসের নেতৃত্বে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন অনুষ্ঠানে সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে সভাপতি অধ্যাপক ড. ওমর ফারুক মিয়াজী বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমে আমরা স্বাধীনতার পরিপূর্ণ স্বাদ পেয়েছি। সেদিনই আমাদের স্বাধীনতা পূর্ণতা পায়। দেশে ফিরেই বঙ্গবন্ধু যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে তাঁর স্বপ্নের সোনার বাংলায় পরিণত করার মিশনে নেমে যান। তাই আমাদের জাতীয় জীবনে এই দিবসটির তাৎপর্য অপরিসীম।

সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. আশুতোষ দাস বলেন, যুদ্ধজয়ের পরের বছর ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু যদি দেশে ফিরে না আসতেন, দেশের পরিস্থিতি কী হতো তা নিয়ে নানা সংশয় ছিল। কারণ হাজার হাজার মানুষের কাছে তখনও অস্ত্র ছিল। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা বঙ্গবন্ধু ছাড়া কারো পক্ষে সম্ভব ছিল না। বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে মাত্র কয়েকদিনে দেশকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। ঘাতকরা যদি বঙ্গবন্ধুকে পঁচাত্তরে শহীদ না করত, তবে বাংলাদেশ এতদিনে সর্বক্ষেত্রে এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলো থেকে এগিয়ে থাকতো।’

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।