চবির জারুলতলায় প্রদর্শিত হল ১০৫টি গবেষণা পোস্টার

0

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অপ্রকাশিত ১০৫টি গবেষণা পোস্টার প্রদর্শিত হয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো কোনো গবেষণা পোস্টার প্রদর্শনী আয়োজিত হল।

বৃহস্পতিবার (২৪ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের জারুলতলায় ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি এস্যুরেন্স সেল’র (আইকিউএসি) উদ্যোগে প্রদর্শনীটি অনুষ্ঠিত হয়। এতে ১০৫টি গবেষণা কর্মের পেছনে অংশগ্রহণ করেছেন মোট ২৫৭ জন গবেষক। এরমধ্যে ১১২ জনই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে।

প্রথমবারের মত আয়োজিত এ প্রদর্শনীতে প্রদর্শিত ১০৫টি গবেষণাকর্মের মধ্যে রয়েছে বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত বিভিন্ন বিভাগের সর্বোচ্চ ৪০টি, জীববিজ্ঞান অনুষদ থেকে ২৩টি, সমাজবিজ্ঞান থেকে ১৫টি, ব্যবসায় প্রশাসন থেকে ১০টি, কলা ও মানববিদ্যা থেকে ৬টি, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ থেকে ৪টি, মেরিন সায়েন্স অনুষদ থেকে ২টি ও আইন অনুষদ থেকে ১টি গবেষণা প্রবন্ধ।

বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ বন ও পরিবেশবিদ্যা ইনস্টিটিউট থেকে ১৭টি, অর্থনীতি বিভাগ থেকে ১২টি ও ফলিত রসায়ন থেকে ১১টি গবেষণাকর্ম।
এছাড়াও তালিকার বাইরে আরো বেশ কিছু গবেষণা প্রদর্শিত হয়েছে বলে জানা গেছে।

সরজমিনে দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের জারুলতলায় আয়োজিত এই গবেষণাপত্রের পোস্টার প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের উপচে পড়া ভিড় ছিল। শিক্ষার্থীরা ঘুরে ঘুরে দেখছেন গবেষণাপত্রগুলো। সেখানে উপস্থিত থাকা গবেষকরা গবেষণাপত্রগুলো শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে দিচ্ছেন।

এদিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো এমন আয়োজনের প্রশংসা করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বাড়তি আমেজ বিরাজ করছে গবেষক শিক্ষার্থীদের মাঝেও। এছাড়া শিক্ষকরাও বেশ আগ্রহের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের গবেষণার বিষয়বস্তু সম্পর্কে বুঝতে সহায়তা করছেন।

অপরদিকে প্রদর্শনীটির আয়োজন করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এসব গবেষণাকর্ম বিশ্ববিদ্যালয়ে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে সবার কাছে তুলে ধরতে ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের গবেষণার প্রতি আগ্রহী করতে এমন উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

আইকিউএসির পরিচালক অধ্যাপক ড. মো.আবুল হোসেন বলেন, আমরা অনেকদিন ধরে এই অনুষ্ঠানটির আয়োজন করতে চাচ্ছিলাম। তবে করোনার কারণে তা হয়ে ওঠেনি। অবশেষে আজ অনুষ্ঠানটা করতে পেরেছি। অনেক শিক্ষক-শিক্ষার্থী এসেছেন। যাদের থেকে আমরা ইতিবাচক সাড়া পেয়েছি।

তিনি বলেন, এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অপ্রকাশিত গবেষণাপত্রগুলোও প্রদর্শনের সুযোগ পেয়েছে বিভিন্ন বিভাগের গবেষকরা। যা তাদের জন্য অনুপ্রেরণা জোগাবে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গবেষণায় আগ্রহ বাড়াবে বলেও জানান তিনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm