‘নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়িয়ে উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ করা হচ্ছে’

0

একটি অসাধু সিন্ডিকেট পরিকল্পিতভাবে নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়িয়ে সরকারের চলমান উন্নয়ন কর্মযজ্ঞকে বাধাগ্রস্থ করছে বলে অভিযোগ করেছেন চট্টগ্রাম সম্মিলিত ঠিকাদার ফোরাম।

বুধবার সকালে (২৩ শে মার্চ) চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন সম্মিলিত ঠিকাদার ফোরামের নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সম্মিলিত ঠিকাদার ফোরামের সদস্য সচিব আসাদুজ্জামান টিটু বলেন, ৯ মাসের ব্যবধানে নির্মান সামগ্রীর দাম বৃদ্ধি পেয়েছে ৩৫ থেকে ৪০ শতাংশ। চট্টগ্রাম এলজিইডি, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর, সড়ক ও জনপথ, গৃহয়ান ও গণপূর্ত বিভাগ,চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, জেলা পরিষদ, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ, পানি উন্নয়ন বোর্ড,সিটি কর্পোরেশন, রেলওয়ে, জনস্বাস্থ্য এইচইডিসহ সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। চট্টগ্রামে প্রায় তিন হাজার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এসব প্রকল্পের কাজ করছেন। রড, সিমেন্টসহ অন্যান্য নির্মান সামগ্রীর অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধির কারনে অধিকাংশ উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ এখন বন্ধ হবার পথে।

তিনি বলেন, গত নয় মাস ধরে পর্যায়ক্রমে ইট, রড-সিমেন্টসহ নির্মান সামগ্রীর দাম বৃদ্ধি করেছে একটি অসাধু সিন্ডিকেট। কিন্তু গত দুই মাসে হঠাৎ করে নির্মাণ সামগ্রীর দাম অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। একই সময়ে ৩৫ থেকে ৪০ শতাংশ বেড়েছে ইলেকট্রনিক্স, হার্ডওয়্যার সেনিটারী পণ্যের দামও। ফলে উন্নয়ন প্রকল্পের সাথে জড়িত ঠিকাদাররা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। বাড়তি দামে নির্মাণ সামগ্রী ক্রয় করে চলমান কাজ সম্পন্ন করতে অনেক ব্যবসায়ী ইতিমধ্যে দেউলিয়া হয়ে পড়েছেন।

‘নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়িয়ে উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ করা হচ্ছে’ 1

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান টিটু বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ইট, বালি, সিমেন্ট ও রডের দাম বেড়েছে। একই সময় প্রায় ৩৫ শতাংশ বেড়েছে ইলেকট্রিক, হার্ডওয়্যার, সেনেটারিসহ বিভিন্ন পণ্যের দাম। দ্রব্যমূল্যের দাম বৃদ্ধির ফলে বেড়েছে নির্মাণ শ্রমিকের দৈনিক মজুরি। বর্তমানে একজন নির্মাণ শ্রমিকের মজুরি ৮০০ টাকা। এ ছাড়া টন প্রতি ৫০ হাজার টাকার রড এখন ৯১ হাজার টাকা। আমদানি করা ৩৪ হাজার টাকার পাথরের টন এখন ৫১ হাজার টাকা। এভাবে সব পণ্যের দাম বেড়েছে। কিন্তু সরকারী কোন বিভাগের রেট রিসিডিউল করা হয়নি।

সংবাদ সম্মেলনে সম্মিলিত ঠিকাদার ফোরামের আহবায়ক গোলাম মুর্তজা টুটুল বলেন, আগে নির্মাণকাজে পদ্মা, মেঘনা, যমুনা ওয়েল কোম্পানির উৎপাদিত বিটুমিন ব্যবহার করা হতো। কিন্তু বিদেশ থেকে বিটুমিন আমদানিকারকদের কারসাজির কারনে দেশীয় বিটুমিনের সরবরাহ চাহিদার বিপরীতে কমে গেছে। ফলে বাজার সংকট দেখিয়ে প্রতি ড্রাম বিটুমিন বিক্রি করা হচ্ছে ১১ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকায়। এতে নির্মান ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ বেড়েছে। কিন্তু কাজের রেইট পরিবর্তন করা হয়নি।

এসময় এলজিইডি ঠিকাদার সমিতির সভাপতি মহিউদ্দিন সুফল, আলী হোসেন, জসিম উদ্দিন, আবু ফরহাদ শাবু, মহসিন হায়দার, নজরুল ইসলাম, সালাউদ্দিন লিটন, সাইফুল ইসলাম, শওকত হোসেন, মো. ইলিয়াছ চৌধুরি, নুরুল আবচার, আবদুল্লাহ টিটু, জামশেদ চৌধুরি, মোহাম্মদ রায়হান, মোহাম্মদ ইমরান, জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনের আগে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে নির্মাণ সামগ্রীর দামবৃদ্ধির প্রতিবাদ জানান চট্টগ্রাম এলজিইডি, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর, সড়ক ও জনপথ, গৃহয়ান ও গণপূর্ত বিভাগ,চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, জেলা পরিষদ, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, সিটি কর্পোরেশন, রেলওয়ে, জনস্বাস্থ্য এইচইডিসহ সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদাররা।

এদিকে, বুধবার দুপুরে নির্মাণ সামগ্রীর দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি সরকারী প্রকল্পে ‘রেইট রিসিডিউল ‘ করার দাবি জানিয়ে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মুমিনুল হকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে সম্মিলিত ঠিকাদার ফোরাম।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm