নৌ ঘাঁটির মসজিদে বোমা হামলা : চট্টগ্রামে ৫ জঙ্গির ফাঁসির আদেশ

0

২০১৫ সালের ১৮ ডিসেম্বর চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর ঈশা খাঁ ঘাঁটির মসজিদে জুমআর নামাজের সময় বোমা হামলা মামলায় ৫ জেএমবি সদস্যকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

দণ্ডিত আসামিরা হলেন— নৌবাহিনীর সাবেক সদস্য এম সাখাওয়াত হোসেন, বলকিপার আবদুল মান্নান ও রমজান আলী, বাবুল রহমান ওরফে রনি এবং জেএমবি সদস্য আবদুল গাফফার। এদের মধ্যে এম সাখাওয়াত হোসেন পলাতক রয়েছেন। বাকিরা কারাগারে আটক।

আদালত তার রায়ের পর্যবেক্ষণে বলেন, যারা দেশের সার্বভৌমত্ব ও সমুদ্রসীমার অতন্ত্র প্রহরী তাদের ওপর হামলার অর্থ দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের ওপরে হামলা করা।

আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জালাল উদ্দিন গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, ঘটনার এক বছর পর এই মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। এই মামলায় ১৬৪ ধারায় কোনো আসামির জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়নি। একইসঙ্গে ১৬৪ ধারায় কোনো সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়নি। এই মামলায় কোনো জব্দ তালিকা ছিল না। আমরা রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

চলতি বছরের ২৩ মার্চ এ মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছিল। এতে মোট ১৭ জনের সাক্ষ্য নেন আদালত।

বোমা হামলার ৯ মাস পর ২০১৬ সালের ৩ সেপ্টেম্বর নেভাল প্রভোস্ট মার্শাল কমান্ডার এম আবু সাঈদ বাদী হয়ে নগরীর ইপিজেড থানায় সন্ত্রাসবিরোধী ও বিস্ফোরক আইনে মামলা করেন। মামলায় নৌবাহিনীর সাবেক সদস্য এম সাখাওয়াত হোসেন, বলকিপার আবদুল মান্নান ও রমজান আলী ও বাবুল রহমান ওরফে রনিকে আসামি করা হয়।

পরবর্তীতে জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্তে গ্রেপ্তার আবদুল মান্নানের বড় ভাই জেএমবি সদস্য আবদুল গাফফারের সম্পৃক্ততায় পায় পুলিশ। জেএমবির চট্টগ্রাম অঞ্চলের প্রধান সমন্বয়ক রাইসুল ইসলাম খান নোমান ওরফে নাফিস ওরফে ফারদিনের নেতৃত্বে নৌ ঘাঁটির মসজিদে বোমা হামলা চালানো হয় বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

ফারদিন ২০১৬ সালের ৩ এপ্রিল বগুড়ার শেরপুরে গ্রেনেড বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণে নিহত হন বলে পুলিশ জানায়। এ কারণে তার নাম এই মামলার আসামি তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়।

২০১৭ সালের ১৫ অক্টোবর ৫ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র জমা দেয় ইপিজেড থানার পরিদর্শক মুহাম্মদ ওসমান গণি। অভিযোগপত্রে মোট ২৪ জনকে সাক্ষী করা হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm