পানির সংকট বাড়ছে, হুমকির মুখে জীবন-জীবিকা

0

নদীর দেশে চলছে ‘পানির জন্য কান্না’, চলছে হাহাকার। প্রতিদিনই সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এ হাহাকার পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নে। নলকূপ স্থানের কারণে মগনামা ইউনিয়নে পানির স্তর আশঙ্কাজনকভাবে নিচে নেমে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এ কারণে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তর ।

সরেজমিনে দেখা যায়, মগনামা ইউনিয়নের বাজার পাড়া গ্রামে নিজের নলকূপে কম্প্রেশার মেশিনের মাধ্যমে সুপেয় পানি তুলছেন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সালাহউদ্দিন আহমদ। নিয়ম করে তিনি প্রতিদিন সকাল-বিকেল প্রতিবেশীদের পানি দেন। সেখানেই শাহনাজ আক্তারের মতো অন্তত একশত জন নারী-শিশু সারিবদ্ধভাবে পানি সংগ্রহ করেন।

এ বিষয়ে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সালাহউদ্দিন আহমদ জানান, গ্রামের ২০টি নলকূপে পানি উঠছে না। নিজের নলকূপে কিছুদিন বৈদ্যুতিক মোটরের সাহায্যে পানি তোলা গেলেও এখন তা কাজ দিচ্ছে না। তাই তিনি নলকূপে অর্ধলক্ষ টাকা ব্যয়ে কম্প্রেশার মেশিন স্থাপন করে পানি তুলছেন। এতে নিজের এবং প্রতিবেশীদের দুর্ভোগ কিছুটা লাঘব হচ্ছে।

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর পেকুয়া কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মগনামা, রাজাখালী ও উজানটিয়া ইউনিয়নে ৫৭টি গ্রামে অন্তত ৪ হাজার ৭০০টি গভীর-অগভীর নলকূপ রয়েছে। এর মধ্যে তিন হাজার নলকূপে পানি উঠছে না। বোরো মৌসুমে সেচের জন্য ১০ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপের গভীর নলকূপ (সাব মার্সিবল পাম্প) যত্রতত্র বসানো ও অনাবৃষ্টির কারণে পানি সংকট দেখা দিয়েছে। বোরো মৌসুমে এই তিন ইউনিয়নে অন্তত দুইশটি গভীর সেচপাম্প চলে। 

মগনামা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুস চৌধুরী বলেন, ‘দুটি বরফকল, সেচ প্রকল্প ও নির্মাণাধীন সাবমেরিন নৌঘাঁটিতে অপরিকল্পিতভাবে গভীর নলকূপ স্থাপনের কারণে পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। তাই, সঠিক পরিকল্পনায় নলকূপ স্থাপনে সরকারি নীতিমালা প্রণয়ন দরকার। নয়তো এ সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যাবে না। বরং দীর্ঘমেয়াদি সমস্যায় রূপান্তরিত হবে।’ 

এ বিষয়ে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর পেকুয়া কার্যালয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী জয় প্রকাশ চাকমা বলেন, ‘উপকূলীয় তিন ইউনিয়নের অগভীর নলকূপ যে স্তরে বসানো হয়েছে, গ্রীষ্মকালে সে স্তরে পানি পাওয়া যাচ্ছে না। মৌসুমের তিন চার মাস এ সমস্যা দেখা দিচ্ছে। ভবিষ্যতে সাব মার্সিবল পাম্পসহ নলকূপ স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হবে। এতে সুপেয় পানির সমস্যা নিরসন হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm