বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব বরেণ্য নেতা

0

বাংলাদেশ স্বাধীনের পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুক্তরাজ্য সফরে গিয়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইডোয়ার্ড হিটের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন। সাক্ষাৎ শেষে ফেরার সময় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর গাড়ির দরজা খুলে দিয়েছিলেন। তখন ঘটনাটি বিশ্বজুড়ে আলোচনার সৃষ্টি করেছিল। গণমাধ্যমের প্রশ্নের জবাবে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, বঙ্গবন্ধুর মতো একজন বিশ্ব বরেণ্য নেতার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পেরে আমি কৃতার্থ।

মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) বিকালে কুমিল্লার লাঙ্গলকোট উপজেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদ চট্টগ্রাম আয়োজিত শোকসভায় এসব কথা বলেন বক্তারা। নগরীর সিআরবি প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত শোকসভা, দোয়া মাহফিল ও খাবার বিতরণ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।
এতে বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির সভাপতি ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. এম রুহুল আমীন, নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামী ফোরামের উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রাজ্জাক, রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার এসোসিয়েশনের আহবায়ক জাফরুল্লাহ মজুমদার, দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান সামছুদ্দিন ইলিয়াস ও চট্টগ্রাম বন্দরের সিবিএ নেতা মেজবাহুল ইসলাম নান্নু।

শোকসভায় বক্তারা বলেন, ৫৬ হাজার বর্গ মাইলের মানুষদের পশ্চিম পাকিস্তানের সরকার মানুষ মনে করতো না। তারা পদে পদে বৈষম্যের সৃষ্টি করে রেখেছেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মাত্র ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে দেশ স্বাধীন হয়। পৃথিবীর যুদ্ধ ও সংগ্রামের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, এতো অল্প সময় কোন দেশ স্বাধীন হয়নি। বঙ্গবন্ধু নেতৃত্বে তা সম্ভব হয়েছে। তিনি ইতিহাসের বরপুত্র। তার মাধ্যমে বাঙালি জাতির ইতিহাসের দরজা খুলেছিল। অথচ ৭৫ এ ষড়যন্ত্রকারীরা বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে নিঃশেষ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার আদর্শের মৃত্যু হয়নি।

বক্তারা আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে নানমুখী উন্নয়ন কাজ চলছে। বিএনপি ক্ষমতায় এসে দেশকে দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন বানিয়েছিল। রাস্তা-ঘাট ছিল না। উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল না। অথচ শেখ হাসিনা দেশের অবকাঠোমগত উন্নয়ন করে চলছেন। পদ্মা সেতু করেছেন। মানুষের দীর্ঘদিনের যোগাযোগের ভোগান্তি দূর হয়েছে। এখনও ষড়যন্ত্র চলছে। বিএনপি মনে করেছে, দেশ শ্রীলঙ্কার মতো হয়ে যাবে। তারা স্বপ্ন দেখে, শ্রীলঙ্কা হলে তারা ক্ষমতায় বসবে। কিন্তু তাদের এই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে না। আমাদের সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। সজাগ থাকতে হবে।

নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামী ফোরামের যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ জয়নাল আবেদীনের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এম জি রহমান ভুঁইয়া গোলাপ, সহসভাপতি ও শ্রমিক নেতা জিয়াউল হক সুমন, সহসভাপতি হাজী খোরশেদ আলম, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম মজুমদার, মোরশেদ আলম দীলিপ প্রমুখ।

শোকসভা শেষে ১৫ আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া করা হয়। এরপর সিআরব এলাকায় শ্রমজীবী, মেহনতি, বাস্তহারা মানুষদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm