শূন্য রেখায় মিয়ানমারের জঙ্গি বিমান বোমা গুলি

তুমব্রু ও ঘুমধুম এলাকা জুড়ে আতঙ্ক

0

মিয়ানমারের দুটি জঙ্গি বিমান গত শুক্রবার রাত ১১টার দিকে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের জিরো লাইনের কাছাকাছি এসে বোমা ও গুলি বর্ষণ করেছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, রাতে মিয়ানমারের যুদ্ধবিমান থেকে সীমান্তের পাহাড়ের দিকে গোলা ছোড়া হয়। এতে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে বসবাসকারীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

সূত্র জানায়, রাত সাড়ে ১০টার পর বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম এলাকার বাজার পাড়ার লোকজন যুদ্ধবিমান থেকে বোমা নিক্ষেপ দেখতে পান। এ ছাড়া গতকাল সকালেও থেমে থেমে গোলাগুলির শব্দ শুনতে পান তুমব্রুর বাসিন্দারা।

তুমব্রু বাজারের ব্যবসায়ী বদিউল আলম জানান, মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের এপারে আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার নম্বর ৩৭, ৩৮ ও ৩৯ এলাকার ওপর দিয়ে ফাইটার বিমান দুটি উড়ে গেছে। তিনি বলেন, ‘বিমান থেকে বোমাবর্ষণের আওয়াজ এবং এর আলো আমি দেখেছি। তবে ঠিক কোথায় বোমা পড়েছে তা জানি না।’

তুমব্রু সীমান্তের উত্তর পাড়া এলাকার এসএসসি পরীক্ষার্থী অং প্রু তঞ্চঙ্গ্যা জানান, তারা ভয়ে ভয়ে পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন। কিন্তু প্রচণ্ড গোলাগুলির আওয়াজে তারা পড়ায় মনোনিবেশ করতে পারছেন না।

নাইক্ষ্যংছড়ির উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মংলাওয়াই মার্মা জানান, ‘শনিবার রাতে তুমব্রু সীমান্তে মিয়ানমারের যুদ্ধ বিমান থেকে বোমা নিক্ষেপের দৃশ্য দেখা গেছে। এর কিছুক্ষণ পর পরই বিকট শব্দে সীমান্ত এলাকা কেঁপে ওঠে।’

সীমান্তে বসবাসকারী স্থানীয় ও রোহিঙ্গারা জানান, রাতে নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুমের তুমব্রু-মিয়ানমার সীমান্তের ওপারে সেনাবাহিনীর যুদ্ধবিমান দেখা গেছে। সে সময় তাদের যুদ্ধবিমান থেকে প্রায় ৩-৫টি গোলা ছোড়া হয়। তুমব্রু সীমান্তের বাসিন্দা মাহামুদুল হক জানান, গতকাল সকালে দু-একবার গোলাগুলির শব্দ পাওয়া গেছে। এতে এখানকার মানুষজন ভয়ভীতির মধ্য রয়েছেন।

এদিকে বিজিবি জানায়, স্থানীয় লোকজন বাংলাদেশ ভূখণ্ডের ওপর দিয়ে হেলিকপ্টার উড়ে যাওয়ার দাবি করলেও দুটি ফাইটার বিমান সীমান্তের জিরো লাইনের কাছাকাছি উড়েছে, সেগুলো বাংলাদেশের আকাশসীমা লঙ্ঘন করেনি। বিজিবি ৩৪ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল মো. মেহেদী হাসান কবির সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশের ভূখণ্ড এবং আকাশসীমার ওপর বিজিবির নজরদারি রয়েছে। এ বিষয়ে কোনো ধরনের আতঙ্ক না ছড়াতে তিনি অনুরোধ জানান।

স্থানীয় নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, মিয়ানমারের সরকারবিরোধী গেরিলা গ্রুপ আরাকান আর্মি (এএ) ৩৪ ও ৩৫ নম্বর আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার থেকে ৩৭, ৩৮ এবং ৩৯ নম্বর এর দিকে সরে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, তাদের লক্ষ্য করেই মিয়ানমার সরকারি বাহিনী বোমা নিক্ষেপ করেছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm