সাউদার্ন ইউনিভার্সিটিতে “মাটির সংকোচন প্রসারণ ক্ষমতার আচরণ” শীর্ষক সেমিনার

0

সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ—এর পুরকৌশল বিভাগের উদ্যোগে “বিভিন্ন সংমিশ্রণ মিশানোর মাধ্যমে পানির উপস্থিতিতে মাটির সংকোচন প্রসারণ ক্ষমতার আচরণ” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সম্প্রতি বিভাগীয় প্রধান ও সহকারী অধ্যাপক ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ আবুল হাসান—এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পুরকৌশল বিভাগের প্রভাষক ইঞ্জিনিয়ার সাজিদ হাসান। তিনি পানির উপস্থিতিতে স্মেক্টাইট মাটির সংকোচন প্রসারণ ক্ষমতা চুন ও সিমেন্টের মাধ্যমে হ্রাস সংক্রান্ত গবেষণার ফলাফল সংশ্লিষ্ট পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে উপস্থাপন করেন ।

স্মেক্টাইট কাদামাটির মতো খনিজ পদার্থ, যা পানি শোষণ করতে পারে। পানি শোষণের ফলে এগুলো আকারে বড় হয়। এগুলো প্রচুর পরিমাণে প্রসারিত হয় কারণ তাদের দ্বারা আরও পানি শোষিত হয়। দশ শতাংশ বা তার বেশি সম্প্রসারণ অস্বাভাবিক কিছু নয়। এই আয়াতন পরিবর্তনের ফলে একটি বিল্ডিং বা অন্যান্য কাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

সংকোচন, প্রসারণ সমৃদ্ধ এই মাটি প্রায়শই বেসমেন্টের দেয়াল, মেঝে এবং ভিত্তির ক্ষতি করে। যখন কাঠামোর মধ্যে পর্যাপ্ত গতি থাকে, তখন বিল্ডিংয়ের উচ্চতর মেঝেতে ক্ষতি হতে পারে। এই কাদামাটি বিশ্বব্যাপী ব্যাপকভাবে বিস্তৃত আছে এবং এটি অবকাঠামো ও ভবনগুলির ব্যাপক ক্ষতির উৎস।

বর্ষাকালে এরা পানি ধারণ করে ফুলে যায় এবং গ্রীষ্মকালে সেখান থেকে পানির বাষ্পীভবনে সঙ্কুচিত হয়। এই ফুলে উঠা এবং সঙ্কুচিত হওয়ার কারণে, আবাসিক ভবন, ফুটপাথ এবং খালের আস্তরণের মতো হালকা লোড করা সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কাঠামো মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অতএব, বিস্তৃত মাটি দ্বারা সৃষ্ট সমস্যাগুলি প্রশমিত করা এবং কাঠামোর ফাটল রোধ করা প্রয়োজন। গোধাগারি, রাজশাহীর অনেক এলাকা মাঝারি বিস্তৃত মাটিতে অবস্থিত যা গবেষকদের উদ্বেগের কারণ।

প্রকৌশলী সাজিদ তার গবেষণায় বিভিন্ন ধরনের বিস্তৃত মাটির সাথে চুন ও সিমেন্টের প্রয়োগে ফলাফল দেখান। যেহেতু চুন এবং সিমেন্ট মাটির উচ্চ স্থিতিশীল সম্পূর্ণ, তাই বিস্তৃত মাটির বৈশিষ্ট্যগুলোর উন্নতির তুলনা করার জন্য পরিচালিত একটি গবেষণায় বর্ণনা করেন। এই গবেষণাটি সিমেন্ট এবং চুনের প্রভাবগুলো মূল্যায়ন করার জন্য পরিচালিত পরীক্ষাগারে পরীক্ষার একটি সিরিজ প্রদর্শন করে।

সাজিদের গবেষণায় তিনি দেখতে পান যে, রাজশাহীর গোদাগাড়িতে মাটির নমুনা মাঝারি বিস্তৃত মাটি এবং মাটি প্রসারণের অনুপাত ১.৮৭৫ যা মাঝারি পরিসরে। মাটি প্রসারণ কমানোর জন্য এখানে তিনি বিভিন্ন শতাংশে সিমেন্ট এবং চুন ব্যবহার করেছেন। পরীক্ষামূলক পদ্ধতির দ্বারা তার গবেষণায় তিনি নিম্নলিখিত সিদ্ধান্তে উপনিত হয়েছেন।

১) সিমেন্টের তুলনায় চুন যুক্ত করার সাথে মাটি প্রসারন অনুপাত মান বেশি ছিল, যা দেখায় যে সিমেন্ট মাটি প্রসারন কমানোর জন্য চুনের চেয়েও আরও ভাল ফলাফল দেখায়। ২) মাটির স্ট্রেন্থ সিমেন্ট যোগ করার সাথে সাথে বৃদ্ধি পায় । ৩) চুন এবং সিমেন্ট যোগ করার ক্ষেত্রে লিমিট এর হ্রাসের হার প্রায় একই ছিল। ৪) মাটির আয়তন কমাতে এবং মাটির স্ট্রেন্থের মান বৃদ্ধির জন্য সিমেন্ট ভাল ফলাফল দেখিয়েছে। (৫) সিমেন্ট চুনের চেয়ে উপযুক্ত মিশ্রণ, ২.৫% এবং ৫% এর জন্য চুন এবং সিমেন্ট মেশানো অন্যান্য শতাংশের তুলনায় ভাল ফলাফল দেখিয়েছে।

বাংলাদেশের অনেক স্থানে এই ধরনের মাটি পাওয়া গেছে যা আমাদের চিন্তার কারণ। সঠিক গবেষণার মাধ্যমে তিনি এর প্রায়োগিক সমাধান খুঁজে বের করার পরামর্শ দিয়েছেন। ভবিষ্যতে অন্যান্য সুযোগগুলো নিয়ে কাজ করার কথা বলেছেন প্রকৌশলী সাজিদ।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm