স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ছাত্রলীগের বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও সমাবেশ

প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কর্মসূচি ‘তুমি দেশের, তুমি দশের’ প্রতিপাদ্যে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও সমাবেশ আয়োজন করেন চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের শীর্ষপদপ্রত্যাশী ছাত্রনেতা হাসমত খান আতিফ।

শনিবার (১৮ মে) শোভাযাত্রাটি চট্টগ্রাম কলেজের জিরো পয়েন্ট—গণি বেকারি—কলেজ রোড—কেয়ারি—চকবাজার গুলজার হয়ে অলিখাঁ মোড় প্রদক্ষিণ করে পুনরায় চট্টগ্রাম কলেজ প্যারেড মাঠে সমবেত হয়ে শেষ হয়।

অনুষ্ঠিত সমাবেশে চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও কোতোয়ালী থানা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাসমত খান আতিফ বলেন, “বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার আগমনকে কেন্দ্র করে সেদিন সারা বাংলা অপার আনন্দে মেতে উঠেছিলো আর ঢাকা হয়ে উঠেছিলো যেনো মিছিলের নগরী। রাষ্ট্রক্ষমতার অবৈধ দখলদার সামরিক শক্তির বহুমুখী বাধা ও বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে “শেখ হাসিনা ভয় নাই, আমরা আছি লাখো ভাই” স্লোগানে প্রকম্পিত হয়েছিলো গোটা ঢাকা শহর। দেশরত্ন জনগণের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে সেদিন বলেন ” আমার হারানোর কিছু নেই। পিতা-মাতা হারিয়ে আমি আপনাদের কাছে এসেছি। আপনাদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশীত পথে তা বাস্তবায়ন করে বাংলার দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চাই, বাঙ্গালী জাতির আর্থসামাজিক তথা সার্বিক মুক্তি ছিনিয়ে আনতে চাই। ৪৪ বছর পর নিশ্চিত ভাবে বলা যায় আমাদের নেত্রী তাঁর কথা রেখেছেন। নেত্রীর দক্ষ নেতৃত্বে সমস্ত সূচকে বাংলাদেশ দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। নেত্রীর প্রতি ভালবাসা প্রদর্শন করতে হাজার হাজার নেতাকর্মীদের নিয়ে ‘তুমি দেশের, তুমি দশের’ প্রতিপাদ্যে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও সমাবেশ আয়োজন করেছি।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার সাহসী অভিযাত্রায় আত্মনিয়োগের মাধ্যমে প্রজন্মের পথচলায় নিরন্তর নিযুক্ত থাকার ইস্পাত-দৃঢ় শপথই আমার সাহস হিসাবে কাজ করে।

এই বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও সমাবেশে নগরীর প্রায় প্রতিটি কলেজ, থানা ও ওয়ার্ড থেকে হাজারো ছাত্রলীগ নেতারা অংশগ্রহণ করে।

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।