‘সেইভ—সিইউ চ্যাপ্টার’র কো-প্রেসিডেন্ট নুসরাত, জেনারেল সেক্রেটারি ইমাম

0

স্টুডেন্টস এগেইনেস্ট ভায়োলেন্স এভরিহয়ার—সেইভ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) চ্যাপ্টারের ২০২২-২৩ সেশনের নতুন নির্বাহী কমিটি গঠিত হয়েছে। আগামী এক বছরের জন্য ১২ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটির কো-প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন সমাজতত্ত্ব বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের নুসরাত জাহান তানী এবং জেনারেল সেক্রেটারি হিসেবে ২০১৭-১৮ সেশনের যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ইমাম ইমু।

বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) সেইভের চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় চ্যাপ্টারের সদ্য সাবেক কো-প্রেসিডেন্ট আদিয়াত নোমান এই কমিটি ঘোষণা করেন। সেইভের ন্যাশনাল মডারেটরের দায়িত্বে আছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আইনুল ইসলাম। এছাড়া সেইভ চবি চ্যাপ্টারের মডারেটরের দায়িত্বে আছেন চবি আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আফজালুর রহমান।

নির্বাহী কমিটির অন্যান্যরা হলেন, টিম লিড ইয়ুথ ডিজএবিলিটি এন্ড ইনক্লুশন মো. জাহিদুল ইসলাম আনাছ, টিম লিড ইয়ুথ ভয়েস মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ ইমন, টিম লিড ইয়ুথ এম্প্লইএবিলিটি ওয়াহিদা নাসরিন প্রান্তি, টিম লিড কানেক্টিং ডট’স মো. ইব্রাহিম চৌধুরী মুন্না, টিম লিড ইভেন্ট এন্ড আউটরিচ মীর মাহামুদুল হাসান শান্ত, টিম লিড ইয়ুথ মিডিয়া আজগর হোসাইন মাহমুদ, টিম লিড শি লিডস শতাব্দী দেব, টিম লিড ক্যাম্পাস রেসিলিয়েন্স মো. রাকিব হোসেন, টিম লিড ইয়ং মাইন্ড’স মো. জোবায়ের হোসেন এবং টিম লিড ইয়ুথ ডেমোক্র্যাসি মো. মশিউর রহমান ইমন।

নতুন কো-প্রেসিডেন্ট নুসরাত জাহান তানী বলেন, করোনার দরূণ দীর্ঘ সময় আমাদের কার্যক্রম অনলাইনে অব্যাহত ছিলো কিন্তু সরাসরি ফুটিয়ে তুলতে পারিনি। বর্তমান কমিটির মূল উদ্দেশ্য হলো নতুনদের মাঝে আমাদের কার্যক্রমগুলো ছড়িয়ে দেয়া। আমাদের চবি চ্যাপ্টারের পরিপার্শ্বে কোনো ধরনের সহিংসতা হচ্ছে কিনা সেটা দেখা এবং সেটা নিয়ে সচেতনতার লক্ষ্যে কি করা যায় তার জন্য তরুণদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা। পাশাপাশি সামাজিক নানা সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে উন্নয়নমূলক পরিকল্পনা ও উদ্যোগ গ্রহণ করা।

জেনারেল সেক্রেটারি ইমাম ইমু বলেন, সেইভ একটি অরাজনৈতিক, সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী ও তারুণ্য নির্ভর বুদ্ধিদীপ্ত একটি ভিন্ন প্লাটফর্ম। এখানে তরুণ সহিংসতার বিরুদ্ধে নানা কৌশল শেখানোর পাশাপাশি নেতৃত্বের গুণাবলির নানা দিক নিয়েও প্রোগ্রাম হয়ে থাকে। নানা বিষয়ে শিক্ষার্থীদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছে সেইভ। আশা রাখছি বর্তমান কমিটি সেই ধারা অব্যাহত রাখতে সক্ষম হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের অক্টোবরে সেইভ বাংলাদেশে কাজ শুরু করে। এটি তরুণদের জন্য একটি ভিন্নধর্মী প্লাটফর্ম যেখানে শান্তির প্রচার, সহিষ্ণুতা ও বৈচিত্র্যতার প্রতি সম্মান এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ নিয়ে কাজ করা হয়। এছাড়া সকল প্রকার সংঘাতের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালিয়ে আসছে সেইভ। সংগঠনটি শিক্ষার্থীদের নেতৃত্ব ও সক্ষমতার উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে। এ পর্যন্ত সেইভের উদ্যোগে দেশের তেরোটি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট প্রায় ২০০টিরও বেশি কর্মশালা ও বিভিন্ন প্রোগ্রাম সম্পন্ন হয়েছে। এতে প্রায় দুই হাজারেরও অধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছেন। বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ সেইভের তেরোটি চ্যাপ্টার (কমিটি) কাজ করে যাচ্ছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm