‘ই-নামজারি’ বদলে দিয়েছে কর্ণফুলী উপজেলা ভূমি অফিসের চিত্র

0

একটা সময় দালালদের ভিড়ে টেকা দায় ছিল চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলা ভূমি অফিসে। এসব দালালের কারণে গ্রামের সাধারণ মানুষ সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হতেন প্রতিনিয়ত। কিন্তু অনলাইন পদ্ধতিতে ‘ই-নামজারি’ চালু হওয়ায় বদলে গেছে ভূমি অফিসের চিত্র।

অনলাইনে আবেদনের পর গ্রাহকের নামজারি আবেদন সম্পন্ন হয়েছে কি না, তা আবেদনকারীর মুঠোফোনে খুদে বার্তার মাধ্যমে সরাসরি জানিয়ে দেয়া হচ্ছে।

গত একমাসে উপজেলা ভূমি অফিস একটি মডেল ভূমি অফিস হিসেবে এলাকাবাসীর কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠেছে। এখন ভূমি অফিসে আগের মতো জমির খাজনা-খারিজ, ভূমির নামজারি, মিসকেসসহ ভূমি সংশ্লিষ্টদের সেবা পেতে জনসাধারণকে আর মাসের পর মাস অপেক্ষায় থাকতে হয় না। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই অতিরিক্ত অর্থ (ঘুষ) ব্যতীত সব ধরনের ভূমি সেবা পাচ্ছেন এলাকাবাসী।

আধুনিক পদ্ধতিতে জনগণকে শতভাগ ভূমি সেবা নিশ্চিতের লক্ষ্যে খোলা হয়েছে তথ্য হেল্প ডেস্ক ও অভিযোগ কেন্দ্র। জনসাধারণের সুবিধার্থে বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়াও অফিসের কোন দফতরে কার কি দায়িত্ব তা অবহিত করার জন্য টাঙানো হয়েছে নোটিশ বোর্ড। ভূমি অফিসের এসব আমূল পরিবর্তনের কারিগর হিসেবে ভূমিকা রেখে চলেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহিনা সুলতানা।

ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত জুলাই থেকে সরকারি নির্দেশনার পর থেকে অনলাইন সেবার বিষয়ে উপজেলাজুড়ে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা শুরু হয়। সেবাসংক্রান্ত প্রচারপত্র ইউনিয়ন ভূমি অফিসসহ অনলাইন-ফেসবুকে প্রচারণা চালানো হয়। এসব কারণে মানুষ এখন অনলাইনে সেবা নিচ্ছে। সাড়াও মিলছে বেশ।

সেবা নিতে আসা চরলক্ষ্যার নুর আহমদ বলেন, কোন প্রকার হয়রানি ছাড়ায় সহজে জমির নামজারি করেছি। ভূমির মালিকানা সহজীকরণসহ দুর্নীতি ও জনদুর্ভোগ কমেছে সাধারণ মানুষের। ভূমি মন্ত্রণালয়ের নেওয়া ডিজিটাল পদ্ধতির সুফল ভোগ করছি আমরা। এখন আর জমির নামজারি, খাজনা পরিশোধ ইত্যাদিতে সময়ের অপচয় হয় না , কমেছে দুর্নীতিও বলেন তিনি। এছাড়াও ডিজিটাল ব্যবস্থার মাধ্যমে একজনের জমি অন্যজনকে রেজিস্ট্রি করে দেওয়ার মতো ভয়ানক জালিয়াতি বন্ধ হবে বলে আশা করেন তিনি।

সদ্য যোগদানকৃত উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পিযুষ কুমার চৌধুরী চট্টগ্রাম খবরকে জানান, গত এক মাসে প্রায় দুইশত ই-নামজারির আবেদন জমা পড়েছে। অনলাইন সেবাটি শতভাগ বাস্তবায়ন করতে উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তাসহ অন্য কর্মচারীদের নিয়ে মাঝেমধ্যে অফিসে পরামর্শ ও আলাপ-আলোচনা করে দিন-দিন জনগণের সেবা বৃদ্ধি করার চেষ্টা করছে ভূমি অফিসের কর্মকর্তারা। সেবা নিতে আসা কেউ যেন অহেতুক হয়রানির শিকার না হয় সে বিষয়ে নজরদারি করছেন কর্মকর্তারা।

তিনি আরো বলেন, জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশক্রমে পূর্বের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখে ভূমি অফিসকে দুর্নীতিমুক্ত, জবাবদিহিতামূলক ও সহজীকরণ সেবা নিশ্চিত করতে কাজ করে যাব।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm